বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের আয়োজনে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নাকি এ আর রেহমান সেলিব্রেশন কনসার্ট?
Mir Monaz Haque , বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৩, ২০১৪


বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের আয়োজনে কনসার্টে সুরের মূর্ছনা জমছে আজ সন্ধ্যায়। এতে পারফর্ম করবেন সুরের জাদুকর এ আর রহমান ও সহশিল্পীরা। কনসার্টের ভেন্যু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম।
সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে কানায় কানায় পূর্ণ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম। সেই সঙ্গে হাজারও দর্শকের হাতে ছিল লাল, নীল, বেগুনি, সবুজ বাহারি রঙের লাইট। স্টেডিয়ামে প্রবেশের সময় দর্শকদের হাতে বিনামূল্যে দেওয়া হয় এগুলো। জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে সন্ধ্যা ৬টা ৩৯ মিনিটে অনুষ্ঠানের মূল কার্যক্রম শুরু হয়।
এই কনসার্ট কে নিয়ে বাংলাদেশে ও বাংলাব্লগ জগতে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া সুর হয়েছে। দেশের ২ জন বিশিষ্ঠ ব্লগারদের মন্ত্যব নিয়ে আজকের এই ব্লগ।
ব্লগার অনন্ত আহমেদ লিখেছেন :
আমি জানি এবং বিশ্বাস করি সঙ্গীত এর কোন ভাষা নেই, দেশ নেই। ‘এ আর রহমান’ আমার প্রিয় সঙ্গীত পরিচালকদের একজন। তাঁর গান আর সুরের ব্যাঞ্জনা আমাকে আপ্লুত করে অনায়াসে, কিন্তু তাঁর পরও রবিন্দ্রনাথ, নজরুল, লালন, হাসন রাজা, মাটির গান, জাগরণের গান কিছুতেই আমাকে ছেড়ে যায় না, আমার রক্তের সাথে মিশে থাকে। ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ আমার প্রথম সুর।
আজ সেই প্রিয় শিল্পীর কন্সার্ট হচ্ছে, অনেক আগ্রহ নিয়ে বসেছিলাম আবার তাঁকে দেখব সরাসরি ( আগে ২ বার দেখেছিলাম, ১ বার নিউইউর্ক ও একবার টরন্টোতে, এবং ২ বারই মুগ্ধ হয়েছিলাম )। আজ কিছুতেই আনন্দিত হতে পারছিনা। যখন দেখলাম আইয়ুব বাচ্চু, সোলস ও অর্নব দের মূল মঞ্চে উঠতে দেয়া হলো না, শুনলাম মাইলস কে শেষ মুহূর্তে সময়ের কথা বলে মঞ্চের পাশে রেখে অনুষ্ঠান থেকে বাদ দেয়া হলো আর সাবিনা, রুনা লায়লা, এনড্রু কিশোর, মমতাজ কখন গাইবে তাও বুঝতে পারছিনা।
আমরা এর আগে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করে খুব প্রশংসিত হয়েছিলাম, সেখানে দেশ ছিল, দেশের ঐতিহ্য ছিল, ধামাকা ছিল। তখন আমরা ছিলাম যৌথ আয়োজক, আমাদের সীমাবদ্ধতা ছিল। আজ যখন আমরা একক আয়োজক এবং আমাদের সম্পুর্ন স্বাধীনতা আছে তখন আমরা ‘এ আর রহমান’ এর শো করলাম, বাংলাদেশের শিল্পীদের অসন্মান করলাম, পুরো অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কোন ঐতিহ্য চোখে পরলোনা। কোথায় গেলো আমার মাটির গান, আমার প্রাণের সুর? ক্রিকেট আমাদের রক্তের স্রোতে উন্মাদনা আনে, সেই ক্রিকেটের নামে আমরা কেন ‘এ আর রহমান’ এর শো করবো? আজকের আয়োজনটি যদি শুধু ‘এ আর রহমান’ এর শো হতো তাহলে কিছুই বলার ছিল না এবং এর সাথে বাংলাদেশের শিল্পীদের জড়ানোর প্রয়োজন ছিল না, ক্রিকেটকে জড়ানোর প্রয়োজন ছিল না। আমি ‘এ আর রহমান’ কে পছন্দ করি কিন্তু কোন ভাবেই আমার দেশকে অপমান করে নয়। তাই আজ আমি মুগ্ধ নই, বিক্ষুব্ধ। আমার দেশকে, আমার মায়ের সন্মানকে নিয়ে বানিজ্য করার অধিকার কারো নেই।
ব্লগার ইমরান এইচ সরকার লিখেছেন: ধরে নিলাম এ আর রহমান, একন(AKON) সহ যারা এসেছেন তারা অনেক নামি-দামি শিল্পী। তারা এদেশে এসেছেন আমাদের উচিত তাদের সম্মানিত করা যাতে আমাদের সম্বন্ধে তারা ইতিবাচক ধারণা পোষণ করেন। এতে কি কেউ আপত্তি করছে? একজন মেহমানকে সম্মান জানাতে হলে কি নিজের ছেলে-মেয়েকে অপমান করতে হবে? মেহমানকে চেয়ারে বসতে দিয়ে কি নিজের সন্তানকে ফ্লোরে বসতে দিতে হবে? কেনো, একাধিক চেয়ার হলে সমস্যা কোথায়? ২টা এসি গ্রিনরুম হলে সমস্যা কোথায়? একই সাউন্ড সিস্টেমে আমাদের লিজেন্ডরা গাইলে সমস্যা কোথায়?
বুঝলাম, আন্তর্জাতিক আয়োজন অন্য ভাষার লোকেরাও অংশগ্রহণ করবে। এটা কি বিশ্বকাপ উদ্বোধনীর প্রথম আয়োজন? অন্য দেশ গুলোর আয়োজন কি আমরা দেখিনি? আমরা কি দেখিনি তারা নিজেদের ভাষা, সংস্কৃতিকে কিভাবে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয় এধরণের আয়োজনে? তাহলে আমরা দিলে কি মহাভারত অন্যায় হয়ে যেতো?
আসলে এই মুহুর্তে আমি খুব কনফিউশনে আছি এই অনুষ্ঠানের আয়োজক কারা। দেখলাম অনুষ্ঠানের নাম দেয়া হয়েছে 'BCB Celebration Concert'। কেউ যদি নিশ্চিত করতেন, এই BCB মানে কি 'Bangladesh Cricket Board' নাকি 'Bharotio Cricket Board'!!?
সামহোয়ের ইন ব্লগে এক ব্লগার লিখেছেন: আজকে সম্ভবত পচাঁ ডিমের দাম বাইড়া যাবে, এর চাইতে ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করলে সবচেয়ে ভাল হতো । বাসায় আছি ...টিভিতে চ্যানেল নাইন চলছে....কিন্তু দেখছি না ...বসে আছি অন্য ঘরে ...কেন যেন আজ এ আর রেহমান টানছে না ।