জার্মানির কোলোন ক্যাথিড্রালের সামনেও শাহবাগ সমাবেশ
ডিডাব্লিউ ও আজকের বাংলা, রবিবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৩


জার্মানির অন্যান্য শহরের মতো বন শহরের কাছেই কোলোনে শনিবার বেলা তিনটেয় সমবেত হন সেই বাঙালিরা, যাদের মন রাজীবের হত্যাকাণ্ডে ক্ষুব্ধ, ভারাক্রান্ত, কিন্তু কণ্ঠে শাহবাগের সোচ্চার দাবি৷
সংগঠকদের মধ্যে অন্যতম, কোলোন ইউনিভার্সিটি অফ অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সেস'র আইটিটি প্রতিষ্ঠানের গবেষক এবিএম ফিরোজ ডয়চে ভেলেকে বলেন, রাজীবের হত্যাকাণ্ড তাঁদের আরো অনুপ্রাণিত করেছে৷ তাঁদের মনে প্রশ্ন জেগেছে, ‘‘এই সাধারণ মানুষগুলো কেন এ'ভাবে মারা যাবে? কেন আমরা একসাথে হতে পারছি না?'' তাঁরা রাজীবের ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা হিসেবে দেখতে রাজি নন৷ রাজীব যে নাস্তিক ছিলেন, এ' অপপ্রচারও তাঁদের কানে এসেছে৷ কিন্তু কোনো ধর্মেই মানুষকে হত্যা করার অনুমতি দেয় না৷
কোলোনের সুউচ্চ এবং সুপ্রাচীন গির্জার সামনে সমাবেশ করেছেন কোলোন, ডর্টমুন্ড, বোখুম থেকে আসা এই বাঙালিরা৷ তাদের অনেকেই শাহবাগ আন্দোলনে সশরীরে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না বলে দুঃখিত৷
জার্মানির অন্যান্য শহরে যারা শাহবাগ নিয়ে আন্দোলন করছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ আছে কিনা, এ' প্রশ্নের উত্তরে ফিরোজ জানালেন, তাদের অধিকাংশই ছাত্র কিংবা পড়াশুনা শেষ করে চাকুরি করছেন৷ কাজেই সকলের মুখ্য যোগাযোগটা ফেসবুকের মাধ্যমে৷ ফেসবুক এবং ব্লগিং'এর মাধ্যমেই বিভিন্ন দেশের শাহবাগচেতাদের মধ্যে আদানপ্রদান চলেছে৷ পরস্পর পরস্পরকে তাদের কর্মসূচি সম্পর্কে জানাচ্ছেন৷
লন্ডনের মতো জার্মানিতে তাঁদের কোনো সক্রিয় বিরোধিতার অভিজ্ঞতা হয়নি, বলে জানালেন ফিরোজ৷ তার একটা কারণ এখানকার বাংলাদেশিদের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি বলে তাঁর ধারণা, কেননা এখানে মূলত ছাত্রদের বাস, যাঁরা ফেসবুক ব্যবহার করেন৷ জার্মানিতে তাঁরা নেতিবাচক চিন্তাধারার মানুষজন খুব কম পেয়েছেন, বলে জানালেন ফিরোজ৷
অপরদিকে জার্মান সহপাঠী, পরিচিত, প্রতিবেশী, ফেসবুক বন্ধুদের জন্য তাঁরা সমাবেশের ডাকও দু'টি ভাষায় জানিয়েছেন৷ তবে জার্মানদের বাংলাদেশের ঘটনাবলী সম্পর্কে বিশেষ একটা ধারণা না থাকার ফলে বাঙালি আন্দোলনকারীদের নানা ধরণের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে: চল্লিশ বছর পরে এই আন্দোলন কেন? জার্মানিতে মৃত্যুদণ্ড না থাকার ফলে সেই দাবি নিয়েও প্রশ্ন উঠছে৷ ফলে জার্মানদের বোঝানোর কাজটাও করতে হচ্ছে ফিরোজ ও তাঁর সমব্যথীদের৷
বাকি থাকছে তাঁদের আন্দোলন কর্মসূচি৷ লন্ডনের মতো তাঁরাও শাহবাগের কর্মসূচির সঙ্গে সমন্বয় রেখে চলার চেষ্টা করছেন: ‘‘আমরাও মোমবাতি জ্বালিয়েছি, আমরাও তিন মিনিটের নীরবতা পালন করেছি,'' জানালেন ফিরোজ৷
সাক্ষাৎকার: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী [সৌজন্যে: ডিডাব্লিউ ও আজকের বাংলা]


লিঙ্ক