জার্মানিতে কি আজও ইহুদি আছে?
বার্লিনের জানালা, শনিবার, মার্চ ৩০, ২০১৩


মার্চ থেকে অগাস্ট অবধি বার্লিনের ইহুদি সংগ্রহশালায় একটি কাচের বাক্সে একজন ইহুদি মহিলা কিংবা পুরুষকে দিনে দু’ঘণ্টা করে বসে থাকতে দেখা যাবে৷ তাঁদের কাজ হল: ইহুদিদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে দর্শকদের প্রশ্নের জবাব দেওয়া৷
হলোকস্টের প্রায় ৭০ বছর পরেও জার্মান জনজীবনে ইহুদিদের ভূমিকাটা একটা স্পর্শকাতর বিষয়৷ বর্তমানে জার্মানির আট কোটি বিশ লক্ষ মানুষের মধ্যে ইহুদিদের সংখ্যা দু'লক্ষের কম৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যে সব জার্মানদের জন্ম, তাদের অধিকাংশ ব্যক্তিগতভাবে কোনো ইহুদিকে চেনেন না অথবা ইহুদিদের সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানেন না৷
এই সব প্রজন্মের জার্মানদের শিক্ষার জন্যই ইহুদি সংগ্রহশালার এই অভিনব প্রচেষ্টা: কাচের বাক্সে ইহুদি মহিলা কিংবা পুরুষকে বসিয়ে তাকে দিয়ে দর্শকদের প্রশ্নের উত্তর দেওয়ানো৷ ‘‘গোটা সত্যটা: ইহুদিদের সম্পর্কে আপনি যা কিছু জানতে চেয়েছিলেন'' – এই হল প্রকল্পটির শীর্ষক৷ চলবে অগাস্ট মাস অবধি৷
লোকমুখে অবশ্য সে নাম বদলে ‘‘কাচের বাক্সে ইহুদি'' হয়ে গেছে৷ এবং স্বয়ং ইহুদি সম্প্রদায়ের একাংশ এই প্রকল্পকে বিশেষ ভালো চোখে দেখছেন না৷ ইহুদিদের পক্ষে অবমাননাকর বলে মনে করছেন৷ যদিও কাচের বাক্সটি হল হলোকস্টের ইহুদি হন্তা আডল্ফ আইশমান'এর বিচার প্রক্রিয়ার প্রতি একটি ইঙ্গিত৷ ১৯৬১ সালে ইসরায়েলে আইশমান'এর যখন বিচার হয়, তখন তাকে একটি কাচের বুথে রাখা হয়েছিল৷
কিন্তু যে সব ইহুদিরা সত্যিই ঐ কাচের বাক্সে বসে দর্শকদের প্রশ্নের উত্তর দিতে রাজি হয়েছেন, তাদের অভিজ্ঞতা হল: জার্মানিতে ইহুদি হিসেবে বসবাস করাটা অনেকটা কাচের বাক্সের ভিতরে বসে থাকার মতো৷ এদেশে আজ এতো কম ইহুদি আছে যে, লোকে ইহুদি বলে জানতে পারলেই ইহুদি ধর্ম, ইসরায়েল, হলোকস্ট – এ সব ব্যাপারে নানা প্রশ্ন করতে শুরু করে৷ যেন ইহুদি বলেই সব ইহুদি এ'সব ব্যাপারে এক একজন বিশেষজ্ঞ হবে৷
ইহুদি সংগ্রহশালার কিউরেটর মিরিয়াম গোল্ডমান – যিনি নিজেও ইহুদি – বলেছেন, এই প্রকল্পের মূল ‘টার্গেট গ্রুপ' বা লক্ষ্য ছিল যেমন অ-ইহুদি, তেমন ইহুদিদেরও বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করতে প্ররোচিত করা৷ প্রদর্শনীটির অপরাপর অংশেও প্ররোচনার ভাবটি স্পষ্ট: যেমন ইহুদি জাতির যে সব বিকৃত ভাবমূর্তি জার্মানি তথা ইউরোপে বহুদিন ধরে বিরাজ করেছে, সেগুলিকে প্রকাশ্যভাবে তুলে ধরা হয়েছে৷
‘‘একজন ইহুদিকে কীভাবে চিনতে পারা যায়?'' এই সাইনটির নীচে সুতো দিয়ে ঝোলানো রয়েছে ইহুদিদের ইয়ারমুল্কে কিংবা কালো টুপির মতো বিভিন্ন বস্তু৷ প্রশ্নটি যে গভীরভাবে ব্যঙ্গাত্মক, সেটা বোঝার ক্ষমতা সব দর্শকের থাকবে তো?
না থাকলে ‘‘কাচের বাক্সে ইহুদি''-কে প্রশ্ন করা চলবে৷
> প্রতিবেদন টি ডিডাব্লিউ এর ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া

লিঙ্ক