বীরের মর্যাদায় এডওয়ার্ড স্নোডেনকে পুরস্কৃত করলো জার্মানি
বার্লিনের জানালা , সোমবার, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৩


এমন দৃষ্টান্ত আছে মহাভারতে৷ রাম বনবাসে, তাই সিংহাসনে তাঁর পাদুকা রেখে রাজ্যশাসন করেছিলেন ছোট ভাই ভরত৷ সেই কথা মনে করিয়ে দিল বার্লিনের এক আয়োজন৷ সেখানে খালি চেয়ার রেখে পুরস্কৃত করা হয়েছে এডওয়ার্ড স্নোডেনকে৷ যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনএসএ)-র বিশ্বজুড়ে ইন্টারনেট ও ফোনে আড়ি পাতার বিষয়টি ফাঁস করে দিয়ে তোলপাড় তোলা স্নোডেন এখন রাশিয়ায়৷ সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেও তাঁর অন্য কোথাও যাওয়ার উপায় নেই৷ তাই শুক্রবার জার্মানির ‘হুইসেলব্লোয়ার' পু্রস্কারটি দেয়া হয় তাঁর অনুপস্থিতিতেই৷ তবে পুরস্কার দেয়ার বিষয়টি জানানো হয়েছে তাঁকে৷ ইন্টারনেট অ্যাক্টিভিস্ট জ্যাকব আপেলবাউম জানান, তাঁর কাছ থেকে টেলিফোনে পুরস্কারের খবরটি জেনে স্নোডেন খুশি হয়েছেন৷ পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে স্নোডেনের একটি চিঠি পড়ে শোনানো হয়৷ চিঠিতে পুরস্কার প্রাপ্তির কৃতিত্ব দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার, মিথ্যার বিরুদ্ধে আপোশহীন এবং গোপণীয়তার গুরুত্ব বুঝতে সক্ষম পৃথিবীর প্রতিটি মানুষকে দিয়েছেন স্নোডেন৷ এনএসএ-র আড়ি পাতার বিষয়টি প্রকাশ করা এবং তা নিয়ে আলোড়ন সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখার জন্য সংবাদমাধ্যম এবং রাজনীতিবিদদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন স্নোডেন৷
বার্লিনে পুরস্কার নিতে নিজে উপস্থিত থাকতে পারেননি ‘হুইসেলব্লোয়ার' স্নোডেন তবে প্রশংসা বেশি হয়েছে তাঁরই৷ ‘হুইসেলব্লোয়ার' পুরস্কার বিতরণীর এই অষ্টম আয়োজনে উপস্থিত প্রায় ৩০০ বিজ্ঞানী, বুদ্ধিজীবী এবং রাজনীতিবিদের সঙ্গে এক টেলি-কনফারেন্সে কথা বলেছেন গ্লেন গ্রিনওয়াল্ড৷ ব্রিটেনের দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকায় লেখা তাঁর প্রতিবেদনের মাধ্যমেই প্রথম জানা গিয়েছিল স্নোডেনের এনএসএ বিষয়ক তথ্য ফাঁসের খবর৷ শুক্রবার বার্লিনে যখন পুরস্কার বিতরণের অনুষ্ঠান চলছে, গ্লেন গ্রিনওয়াল্ড তখন দক্ষিণ আফ্রিকায়৷ সেখান থেকে স্নোডেনের প্রশংসা করতে গিয়ে তিনি বলেছেন, ‘‘এক জন মানুষের যে বিশ্বে বড় পরিবর্তন আনার ক্ষমতা থাকতে পারে সেটাই আমাদের দেখিয়ে দিয়েছেন স্নোডেন৷'' হ্যামিলনের বাঁশীওয়ালার কথা মনে করিয়ে দেয়া ‘হুইসেলব্লোয়ার' পুরস্কারটি দেয়া হয়েছে জার্মান বিজ্ঞানীদের সংস্থা ভিডিডাব্লিউ, আণবিক অস্ত্র বিরোধী আইনজীবীদের সংগঠন, সংক্ষেপে আইএআইএএনএ এবং ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের পক্ষ থেকে৷ স্নোডেনের হয়ে পুরস্কার গ্রহণ করেন জ্যাকব আপেলবাউম৷ আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে সনইয়া সেমুর মিকিচের বক্তব্য খুব মনে রাখার মতো৷ একটু নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এডওয়ার্ড স্নোডেন যখন দিশেহারা, তখন জার্মানি এবং পশ্চিমা বিশ্বের অনেকগুলো দেশ জানিয়ে দেয় যে, তাদের পক্ষে রাজনৈতিক আশ্রয় দেয়া সম্ভব নয়৷ সে কারণে দেশগুলোর তীব্র সমালোচনা করেছেন সাংবাদিক সনইয়া সেমুর মিকিচ৷>DW.DE এন্ড আজকের বাংলা

লিঙ্ক